‘ভুবনমোহন পার্ক’ একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন

ভুবনমোহন পার্ক রাজশাহী শহরের একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন। রাজশাহীর সকল আন্দোলনের কেন্দ্রভুমি হিসাবে এই পার্কের গুরুত্ব অপরিসীম। বস্তুত ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত রাজশাহীর সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ভুবন মোহন পার্ককে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়েছিল।

 

ভুবনমোহন পার্ক রাজশাহী / ছবি – Nahid.rajbd

সাধারণ তথ্য:
নির্মিত: জমিদার ভুবনমোহন ।
খোলা ১৯০০ (আনুমানিক) ।
পরিচালিত: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন ।

জাতীয় স্বার্থে এদেশের মানুষ যত ইতিহাস রচনা করেছে, তার প্রতি ঘটনাতে রাজশাহী মহানগরী অসীম উদ্দিপনায় সাহসী ভূমিকায় অটল থেকেছেন। এক কথায় সত্য, বৃহত্তর লক্ষ্য অর্জন ও যে কোন অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ, প্রতিবাদ ও সংগ্রাম গড়ে তোলায় এখানকার মানুষের বৈশিষ্ট্য। তৎকালীন সময়ে রাজশাহীর সকল আন্দোলন সংগ্রাম ভুবনমোহন পার্ককে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়েছিল।এই ঐতিহাসিক ভবনমোহন পার্ক টি এখন।

ভুবন মোহন পার্কে অবস্থিত শহীদ মিনারটি ১৯৫৩ সালে নির্মাণ করা হয়।  ছবি – Nahid.rajbd

শহীদ মিনার নির্মাণ সাল ১৯৫৩
২০০৫ সালে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এই শহীদ মিনারে ৬৪ জন ভাষা সৈনিক এর নামফলক স্থাপন করে।

Advertisements
Posted in ঐতিহাসিক নিদর্শন | Tagged , , , , , , , | Leave a comment

অত্যাচারী দেওরাজের নরবলী দেয়ার ইতিহাস ১ম পর্ব

অত্যাচারী দেওরাজের নরবলী দেয়ার ইতিহাস ১ম পর্ব

বাংলাদেশের অন্য যেকোনো জেলার ইতিহাসের চেয়ে রাজশাহী শহরের পত্তনের ইতিহাস আমাকে বেশি আকর্ষন করে। সেটা হতে পারে ছোটবেলা থেকে এই গল্পগুলো শুনে শুনে বড় হয়েছি তাই। কিন্তু গল্পের সেই মহাকাল গড় রাজ্য, দেওরাজের শাসন-শোষন, কালো জাদুর চর্চা, নরবলী..মানে শোষনের চরম পর্যায়ে চলে যাওয়া একটা জনপদ বলতে যা বোঝায়, তার সমস্ত উপাদানই ছিলো সেই রাজ্যে। সেখান থেকে ক্রমশ উত্তোরন, যুদ্ধ, নতুন রাজ্যের পত্তন..পুরোটাই যেনো টানটান একটা থ্রিলার উপন্যাস, পাতায় পাতায় ক্লাইম্যাক্সে ঠাসা।

Image

তখনকার সময়ে ধান আর মাছ ছিলো অর্থনীতির মূল ভিত্তি, তাই সব শাসকদের মেইন ফোকাস থাকতো জেলে আর কৃষকদেরকে কিভাবে হাতে রাখা যায়। তার জন্যে বিভিন্ন শাসক বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করতো। দেওরাজের পদ্ধতিটা ছিলো এরকম, সে প্রতি বছর পূজার মৌসুমে একজন মানুষকে দেবতার উদ্দেশ্যে বলী দিতো, আর কাকে বলী দেয়া হবে সেটা ঠিক করা হতো প্রজাদের মধ্যে লটারি করে।

ধর্মের নামে কতকিছুই তো জায়েজ করা হয় এযুগেও। তখন সেটা হতো আরো ব্যপকভাবে। তাই এভাবে ভালোই চলছিলো সবকিছু। প্রজারাও মেনে নিয়েছিলো, বছরে একটা মানুষই তো মরবে। প্রতিবছর এই দিনটা আসার আগে দুরু দুরু বুকে সবাই জড়ো হতো মন্দিরে। তারপর লটারীর ফল ঘোষনার সাথে সাথে হাঁপ ছেড়ে বাচতো সবাই। কে জানে হয়তো নাম ঘোষনার সাথে সাথেই মনে মনে পৈশাচিক আনন্দ অনুভব করতো অনেকে। যাক আপদ বিদায় হলো, আরো এক বছর সবাই মিলে নিরাপদে থাকা যাবে। শুধু কান্নার রোল উঠতো একটা পরিবারে…

এর মধ্যেই একটা ঘটনা ঘটলো। সেসময় এর তাৎপর্য হয়তো কেউ সেভাবে বুঝে উঠতে পারেনি, কিন্তু এখন আমরা বুঝি এই সামান্য ঘটনা কতটা সুদূরপ্রসারী পরিবর্তন এনেছিলো এই জনপদে। এক বছর পূজার আগে বলীর লটারীতে উঠলো জেলে পাড়ার একটা ছেলের নাম। তাকে বলী দেয়া হলো সে বছর। এরপরের বছর লটারী করে দেখা গেলো এবারও উঠেছে সেই একই ঘরের মেজো ছেলের নাম। সেই খবরে সেই পরিবারের প্রতিক্রিয়া কি ছিলো বা তারা প্রতিবাদ করেছিলো কিনা জানা তা আমাদের জানা নেই, তবে এটা জানা আছে যে সে বছরেও কোনো বিঘ্ন ছাড়াই নরবলী সুসম্পন্ন হয়েছিলো। এভাবেই চলে আসলো এরপরের বছর লটারির সময়। আমাদের সম্ভাব্যতার অংক কি বলে? সেই পরিবারের কারো আবার বলীর সম্ভাব্যতা কি খুব বেশী? না। কিন্তু পরের বছর লটারির সময় দেখা গেলো এবার নাম উঠেছে সেই বাড়ীর তিন ছেলের মধ্যে সবচেয়ে ছোট এবং শেষ সন্তানের নাম।

পরপর দুই ছেলেকে বলীর যুপকাষ্ঠে তুলে দেয়ার পর শেষ সন্তানের নাম লটারিতে উঠতে দেখে পিতার মনের ভেতর জ্বলে ওঠে বিক্ষোভের ছাই চাপা আগুন। বলী দেয়ার দিন যতই সামনে আসতে থাকে, সে ছটফট করতে থাকে যদি কোনো ভাবে এই ছেলেটিকে পিশাচ রাজার হাত থেকে বাঁচানো যায়। কিন্তু একজন প্রবল প্রতাপশালী শাসকের বিরুদ্ধে সামান্য এক দরিদ্র জেলে কিই বা করতে পারে?

সে জানতো ততদিনে দিল্লীতে মোঘল শাসনের পত্তন হয়েছে, আরবের কন্টকাকীর্ণ শুষ্ক জমি পেরিয়ে মুসলিম শাসকরা ক্রমে এগিয়ে আসছে ভারতের উর্বর মাটির দিকে। হিন্দু রাজারা তা নিয়ে বিলক্ষণ দুঃচিন্তায় ছিলো। একমাত্র মুসলিম বাহিনীকে যদি কোনোভাবে এই দেওরাজের ভূমিতে আনা যায়, বলী অনুষ্ঠানের আগেই, একমাত্র তাহলেই হয়তো বাঁচানো যাবে তার শেষ সন্তানকে। এই আশার ক্ষীণ আলো জ্বালিয়ে রাখতেই অতি গোপনে সে যোগাযোগ স্থাপন করতে পেরেছিলো এক মুসলিম সাধকের সাথে। তার কানে গিয়েছিলো , এই সাধক অত্যন্ত দয়ালু মানুষ। তার কাছে যদি সে এই অত্যাচারের কাহিনীটা খুলে বলতে পারে, সে নিশ্চই কোনো মুসলিম রাজার দরবারে তা পৌছে দিবে।

এই ভেবেই যোগাযোগ করে সে কিভাবে কিভাবে পৌছে গেলো সে সাধকের কাছে। ঠিক হলো সন্ধ্যায় পদ্মার তীরে আসবেন তিনি, নিজে কথা বলবেন সেই জেলের সাথে। আর ঠিক পরের দিন সকালেই হবে সেই বলীর অনুষ্ঠান।

সেদিন বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসতেই এক জেলেকে দেখা গেলো উদ্ভ্রান্ত চেহারায় পদ্মার তীরে দাঁড়িয়ে থাকতে।

কখন সেই সাধক আসবেন, উদ্ধার করে নিয়ে যাবেন তাদেরকে। ক্ষণে ক্ষণে চকচক করে উঠে জেলে পিতার চোখ, আবার পরক্ষণেই চেহারা মিইয়ে যায় দুঃচিন্তায়।

কিন্তু অপেক্ষা করতে করতে অনেক রাত তো হলো, কোথায় সেই সাধক?

অনেক রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করার পর একটা সময় জেলে বুঝতে পারলো আর এখানে দাঁড়িয়ে থাকা বৃথা। কেউ আসবে না তাদেরকে বাঁচাতে। যা করার নিজেকেই করতে হবে। হয় পুরো পরিবার নিয়ে পালিয়ে যেতে হবে, ধরা পড়লে সপরিবারে মরতে হবে, আর নাহলে নিজেরাই নিজেদেরকে শেষ করে দিতে হবে। অন্তত আর কোনো ছেলেকে বলীর যন্ত্রে তুলে দেয়ার চেয়ে মৃত্যুই শ্রেয়।

হতাশ, নিরুপায়, বিব্রত সেই জেলে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে ঘুরে দাড়ালো। আর একটা মুহুর্ত অপেক্ষা করে পা বাড়ালো বাড়ীর পথে…

ঠিক এমন সময় সে পেছন থেকে একটা ডাক শুনতে পেলো। দাঁড়াও…” হঠাৎ ডাক শুনে চমকে উঠে ঝট করে পেছন ফিরে তাকালো জেলেটি।

আজকের মতো কাহিনীটা এই পর্যন্তই থাকুক। কালের আবর্তনে প্রবল প্রতাপশালী সেই দেওরাজের পতন হয়েছে, মহাকাল গড়ের বিধ্বস্ত রাজ্যের উপর পত্তন হয়েছে রাজশাহী শহরের। তবে ইতিহাস অনেক কিছুই মনে রাখেনি, আমরা বিস্মৃত হয়েছি সেই পরিবর্তনের ঝান্ডা তুলে ধরা সেই জেলের নামধাম পরিচয়। কিন্তু কালের সাক্ষী হিসেবে থেকে গেছে নরবলী দেয়ার সেই যুপকাষ্ঠটি। এর অনেক কলকব্জা হারিয়ে গেছে অবশ্য, তবে মূল ফ্রেমটা বর্তমানে সংরক্ষণ করা হয়েছে সেই মুসলিম সাধক, শাহ মখদুম (রহ) এর মাজারে।

কৃতজ্ঞতায় ব্লগার : Eisenheim

Posted in মাজার ও ইতিহাস, Uncategorized | Tagged , , , , , , , | Leave a comment

মহারাণী ভবানীর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

রাজা রামকান্তের স্ত্রী ছিলেন রাণী ভবানী৷ তার জন্ম আনুমানিক ১১২২ বাংলা সনে৷ পিতা আত্মারাম চৌধুরী এবং মাতা জয়দূর্গা৷ রাণী ভবানী ১৭৪৮ খ্রিঃ থেকে ১৮০২ খ্রিঃ পর্যন্ত দীর্ঘ ৫৪ বৎসর জমিদারী পরিচালনা করেন৷ দান, ধ্যান, শিক্ষা, পানীয় জলের ব্যবস্থা, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, চিকিৎসা ও ধর্মীয় কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ রাণী ভবানী সরকারী কোন খেতাব না পেলেও তাঁর প্রজারা তাঁকে ‘মহারাণী’ নামে আখ্যায়িত করে
Image
• ১৭৩০ খিস্টাব্দে রাণী ভবানীর সাথে রাজা রামকান্তের বিয়ে হয় ।
• ১৭৪৮ খিস্টাব্দে রাজা রামকান্তের মৃত্যুর পর নবাব আলীবর্দি খা নাটোর জমিদারী পরিচালনার ভার রাণী ভবানীর উপর অর্পন করেন ।
• তার রাজত্বকালে জমিদারী বর্তমান রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, কুস্টিয়া, যশোর , রংপুর এবং ভারতের পশ্চিমবংগের মুর্শিদাবাদ, বীরভূম , মালদহ পর্যন্ত বিস্তার লাভ করে ।এজন্য তাকে অর্ধবংগেশ্বরী বলা হতো ।
• প্রজা সাধারণের কল্যাণের জন্য রাণী ভবানী সুদীর্ঘ ৫০ বছর দক্ষতার সাথে তিনি বিশাল জমিদারী পরিচালনা করেন ।
• তার সন্তানদের মধ্যে (২ ছেলে, ১ মেয়ে ) শুধু তারাসুন্দরী জীবিত ছিলেন ।
• পরবর্তীতে তিনি রামকৃষ্ঞকে দত্তক নেন ।
• রামকৃষ্ঞের দুই সন্তান বিশ্বনাথ(বড় তরফ)শিবনাথ(ছোট তরফ)
• রাণী ভবানী ১৮০২ সালের ৫ই সেপ্টেম্বর ৭৯ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন।

Posted in রাজশাহীর ইতিহাস | Tagged , , , , , , | Leave a comment

”সাবাস বাংলাদেশ/ এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়/ জ্বলে পুড়ে মরে ছারখার/ তবু মাথা নোয়াবার নয়।”

”সাবাস বাংলাদেশ/ এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়/ জ্বলে পুড়ে মরে ছারখার/ তবু মাথা নোয়াবার নয়।”

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী তরুণ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতীকী ভাস্কর্য। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের যে প্রতীকি ভাস্কর্যগুলো রয়েছে তার মধ্যে প্রকাশভঙ্গীর সরলতা, গতিময়তা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার তেজস্বী প্রকাশ এবং নন্দনতাত্বিক দিক থেকে এই ভাস্কর্যটি অনবদ্য ।1238383_215354371964339_1840930967_n

স্থাপত্য তাৎপর্য :

স্বাধীনতার জ্বলন্ত প্রমাণকে ধরে রাখার জন্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপন করা হয়েছে স্মারক ভাস্কর্য সাবাস বাংলাদেশ । ১৯৬৯ সালের গণ আন্দোলনের সময় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র –শিক্ষক- কর্মকর্তা- কর্মচারীদের বলিষ্ঠ সাহসী ভূমিকা ছিল। সে সময় এমন ঘটনার আর্বত সৃষ্টি হয় যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলই তাতে জড়িয়ে পড়েন এবং অধ্যাপক ড. শামসুজ্জোহা শাহাদাৎ বরণ করেন। এরপর ১৯৭১ সালের ২৫মার্চ পাকিস্তান সেনাবাহিনী অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদ নিশ্চিহৃ করার যে ব্যর্থ প্রয়াসের সূচনা করে তাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ও আক্রান্ত হয়। কয়েকদিনের মধ্যে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর যে দল রাজশাহীতে সক্রিয় ছিল তা দুর্বল হয়ে পড়ে এবং অবশেষে স্থানীয় ক্যান্টনমেন্টে আশ্রয় গ্রহণ করতে বাধ্য হয় । রাজশাহী শহর তৎকালীন ই.পি.আর. নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি বিপুল অংশ শহরে প্রবেশ করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী ঘাটি স্থাপন করে। জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবপূর্ণ অবদান পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছিল। তাদের বিতাড়িত করতে শাহাদৎ বরণ করেন অধ্যাপক হবিবুর রহমান, অধ্যাপক সুখরঞ্জন সমাদ্দার, অধ্যাপক মীর আক্ষদুল কাউযুম, কর্মকর্তা- কর্মচারী ও ছাত্র।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় অনেক শিক্ষক-ছাত্র শহীদ হওয়ায় এর স্মৃতিকে চির অম্লান করে রাখার জন্য উদ্যোগ নেয় কর্তৃপক্ষ। তারপর নির্মাণের জায়গা নির্ধারণ হয় সিনেট ভবনের দক্ষিণে। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পর ১৯৯১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের উদ্যোগে শিল্পী নিতুন কুন্ডুর উপাস্থপনায় নির্মাণ কাজ শুরু হয়। নির্মাণ কাজ শেষে হলে এর ফলক উম্মোচন করেন শহীদ জননী জাহানারা ইমাম। ভাস্কর্যে স্থান পেয়েছে তরুণ কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতার কয়েকটি লাইন। যা হলো …
সাবাস বাংলাদেশ/ এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়/ জ্বলে পুড়ে মরে ছারখার/ তবু মাথা নোয়াবার নয়।’

Know More about our Rajshahi

Posted in স্মারক ভাস্কর্য | Tagged , , , , , , | Leave a comment

‘রাজশাহী আজ যা করবে, কাল তা বাংলাদেশ করবে’

রাজশাহী নগরের আলুপট্টির মোড়। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা (গতকাল)। টিপটিপ বৃষ্টি। মসজিদ থেকে বের হলেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সদ্য সাবেক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান। সঙ্গে চারবারের মতো নির্বাচিত কাউন্সিলর আবদুল হামিদ সরকার। মসজিদ থেকে বেরিয়ে গিয়ে বসলেন পাশের এক ব্যবসায়ীর কার্যালয়ে। চায়ের জন্য বললেন।
এই মোড় দিয়ে যাচ্ছিলেন নবনির্বাচিত মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন। খায়রুজ্জামান এখানে আছেন শুনে ভেজানো দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকলেন তিনি। খায়রুজ্জামান উঠে দাঁড়ালেন। হাত বাড়িয়ে মোসাদ্দেককে বুকে টেনে নিলেন। নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে থাকলেন কাউন্সিলর আবদুল হামিদ ও এই প্রতিবেদক। শুরু হলো আড্ডা। নতুন মেয়রের জন্য চা বলা হলো। মোসাদ্দেক চিনি ছাড়া চা খান। ডায়াবেটিস হয়নি, কিন্তু মৃত্যুর আগে বাবার ডায়াবেটিস ধরা পড়েছিল। তাই চিকিৎসকের পরামর্শে অনেক দিন থেকে মোসাদ্দেক চিনি ছাড়া চা পান করেন। বললেন, ‘এখন অভ্যাস হয়ে গেছে। এতে ভালোও আছি।’
কথায় কথায় নতুন মেয়র মোসাদ্দেক সিটি করপোরেশনের প্রসঙ্গ তুললেন। সাবেক মেয়রের কাছে জানতে চাইলেন কয়টি প্রকল্প চলমান আছে। খায়রুজ্জামান একেক করে প্রকল্পগুলোর নাম বললেন। কোনটির কতটুকু অগ্রগতি, তা-ও বললেন। কীভাবে প্রকল্পগুলো হাতে নিয়েছেন, কীভাবে প্রকল্প পাস করাতে হয় তার দু-একটি কৌশলও বলে দিলেন। কথা চলল দুই মেয়রে—
খায়রুজ্জামান: কাজগুলো বন্ধ করে দিয়ো না। আমি নতুন অনেক কাজ করেছি। মিজানুর রহমান মিনুর আমলের কাজও শেষ করেছি।
মোসাদ্দেক: উন্নয়ন চলমান প্রক্রিয়া। প্রকল্পগুলো জনস্বার্থেই নেওয়া হয়েছিল। প্রকল্পগুলো শেষ করব।…মালোপাড়ার রাস্তাটার কী অবস্থা, ভাই!
—কয়েকটি রিট থাকার কারণে অধিগ্রহণ ঠেকে আছে।
—এই অধিগ্রহণটা আপনি করতে গেলেন কেন

—(খায়রুজ্জামান হেসে) অধিগ্রহণ না করলে তো উন্নয়নও করা যাবে না।
—উন্নয়ন করে তো ভোট পাওয়া গেল না। নিজে ঠেকে এবার শিখলেন তো। (দুজনই একসঙ্গে হেসে উঠলেন)। লিটন (খায়রুজ্জামান) ভাই, সিটি সেন্টারটা আপনি এনা প্রপার্টিজকে দিয়ে করালেন কেন, নিজে করলেই তো পারতেন।
—নিজের করার মতো তো করপোরেশনের টাকা ছিল না।
—স্বপ্নচূড়া প্লাজাটা সিটি ভবনের পাশে না করে জায়গাটি উন্মুক্ত রাখলে বেশি সুন্দর লাগত না! এই ভবনে সিটি বিশ্ববিদ্যালয় হলে সিটি ভবনের পরিবেশ আর আগের মতো থাকবে না।
—পরে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিলেই হবে। ফাঁকা রাখলে ভালো লাগত ঠিক আছে। তবে সিটি ভবনের সামনেও আরও বেশি জায়গা ছাড়া দরকার ছিল। তখন মিজানুর রহমান মিনু সেটা করতে পারেননি। যাই হোক, যে বাণিজ্যিক ভবনগুলো করা হয়েছে তাতে তুমি বসলে (মেয়রের দায়িত্ব নিলে) বুঝতে পারবে সিটি করপোরেশনের অনেক আয় হবে।
—(আরেক কাপ চায়ের ফরমাশ দিলেন মোসাদ্দেক হোসেন) ভাই, মাদক রাজশাহীর অন্যতম সমস্যা। অভিভাবকেরা সচেতন না হলে শুধু প্রশাসন দিয়ে কি ঠেকানো যাবে?
—কখনোই ঠেকানো যাবে না। ছেলে কখন বাড়ি ফিরছে, কখন ঘুম থেকে উঠছে? মা-বাবাকে খেয়াল রাখতে হবে। ছেলে রাত করে বাড়ি ফিরবে, দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঘুমোবে আর মা-বাবা খেয়াল করবেন না; তাহলে তো হবে না।
—ভাই, আপনার মনে আছে না, সন্ধ্যার পরে বাড়ি ফিরলে আন্টির (খালা) কত বকা খেতে হয়েছে।
দুই মেয়র এক জায়গায় বসেছেন, ইতিমধ্যে এ খবর চাউর হয়েছে। দু-একজন করে সমর্থকেরা আসছেন। পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করছেন। আড্ডা অন্যদিকে মোড় নিচ্ছে।
এ সময় প্রথম আলোর পক্ষ থেকে নতুন মেয়র মোসাদ্দেক হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হলো—এটা অনেকটা রীতি হয়ে গেছে, আগের জনপ্রতিনিধির স্মৃতিচিহ্ন মুছে দেওয়া। রাজশাহীতে সাবেক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান নগরের বিন্দুর মোড়কে সুন্দর করে সাজিয়েছেন। মাঝখানে একটা মনুমেন্ট তৈরি করেছেন। নাম পরিবর্তন করে রেখেছেন ‘এ এইচ এম কামারুজ্জামান চত্বর’। আপনি কি এগুলো রাখবেন, না ভেঙে ফেলবেন?
মোসাদ্দেক হোসেন বললেন, ‘না, না; ভেঙে ফেলব কেন! সারা দেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতি যা-ই হোক, আমরা রাজশাহীর মানুষ নতুন সংস্কৃতি চালু করব। রাজশাহী আজ যা করবে, কাল তা বাংলাদেশ করবে।’
নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করার জন্য খায়রুজ্জামান নাগরিক কমিটিকে ধন্যবাদ জানাতে যাবেন। এ জন্য একটা আয়োজন করা হয়েছে। তাই সবাইকে ধন্যবাদ দিয়ে উঠে গেলেন তিনি।

Aside | Posted on by | Tagged , , , , , , | Leave a comment

হজরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর মাজার ও ইতিহাস

বহু পীর সাধকের পুণ্যভুমি রাজশাহী মহানগরী। যখন এই জনপদের মানুষ কুসংস্কার আর অপপ্রথার নিবিড় অন্ধকারের অতল গহ্বরে ডুবে থেকে নানান কুকর্মে লিপ্ত ছিল, দেব-দেবীর নামে নরবলি দেয়া হতো, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ ছিল প্রকট, তখন থেকেই এ সকল পীর সাধকের আগমন ঘটতে থাকে সুদূর মধ্য প্রাচ্য ও অন্যান্য অঞ্চল থেকে। তারা অবোধ মানুষের মাঝে জ্ঞানের শিখা ছড়ানোর মহৎ উদ্দেশ্য ও বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ের প্রতিজ্ঞায় ও মনুষ্য সম্প্রদায়ের কল্যাণে জীবনের সব সময়টুকু ক্ষয় করে দেন। তাদের ডিঙ্গাতে হয় নানা প্রতিকূলতার দেয়াল। এমনকি প্রাণ বিসর্জনও দিতে হয় কাউকে কাউকে। এ সকল মহৎ প্রাণের অন্যতম পদ্মা পাড়ে চিরশায়িত হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ)।
কাজী রওশ আলী সম্পাদিত বিভাগ গাইড রাজশাহী গ্রন্থে ও হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) দরগাহ পাবলিক ওয়াকফ এস্টেট ট্রাস্টি বোর্ড প্রকাশিত ইতিহাস ও ঐতিহ্য গ্রন্থে অধ্যাপক মুহম্মদ আবু তালিব একখানি প্রাচীন বাংলা গ্রন্থের কলমী পুথি। হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর জীবনী তোয়ারিখ প্রবন্ধে হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর প্রকৃত নাম হজরত সৈয়দ আব্দুল কুদ্দুস হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তবে প্রবীণ লেখক অধ্যাপক এবনে গোলাম সামাদ তার রাজশাহীর ইতিবৃত্ত গ্রন্থে বলেন, “এই পীরের (হজরত শাহ মখদুম রহঃ) আসল নাম কি ছিল, তা নিয়েও আছে বিতর্ক। তিনি সাধারণভাবে রাজশাহী বাসীর কাছে বাবা মখদুম নামেই পরিচিত।” তিনি আরো উল্লেখ করেন, মখদুম শব্দটি আরবী। শব্দগত অর্থে শিক্ষক, জ্ঞানী অথবা পরিচালক। তবে তিনি আধ্যাত্মিক সাধক, জ্ঞানী, কামিলিয়াত ছিলেন এই বিষয়ে কেউ দ্বিমত প্রকাশ করেনি। বিভিন্ন গ্রন্থে দৃষ্টিপাত করলে দেখা যায়, হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) ছিলেন বড় পীর আব্দুল কাদের জিলানী (রহঃ) এর পৌত্র এবং আজাল্লা শাহ্ এর ২য় পুত্র। তিনি ৬১৫ হিজরীর ২ রজব বাগদাদে জন্ম গ্রহণ করেন। রুপোশ তার উপাধী। শব্দটি ফারসী। যার অর্থ মুখ আবরণকারী। তার উপাধি থেকে একথা বোঝা যায় যে, সাধারণ মানব বৈশিষ্ট্য ছাড়াও তার মধ্যে অসাধারণ ক্ষমতা লুকায়িত ছিল। হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর রাজশাহী

আগমনের অন্তরালে আছে এক বিস্তৃত ইতিহাস।
১২৫৯‌ খ্রিষ্টব্দে মোধল বীর হালাকু খান বাগদাদ আক্রমণ করলে বড়পীর আব্দুল কাদের জিলানীর বংশধরগণ বাগদাদ থেকে কাবুল, কান্দাহার, পারস্য ও পাক ভারতের বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করে। হযরত শাহ্ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ‌এর পিতা আজ্জালা শাহ্ দিল্লীতে আশ্রয় গ্রহণ করেন। তার উন্নত চরিত্র ও গুণাবলীর প্রতি মুগ্ধ হয়ে দিল্লীর সম্রাট ফিরোজ শাহ্ তার কাছে বায়েত হন। পিতার সহচার্যে তিন পুত্র সৈয়দ মুনির উদ্দীন আহমেদ (রহঃ), হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ), ও সৈয়দ আহমদ তম্বরী (রহঃ) অধ্যাত্মিক সাধনায় সমৃদ্ধ লাভ করেন। হালাকু খানের মৃত্যুর পর শাহ আজ্জালা বাগদাদে ফিরে গেলেও তার পুত্রগণ ইসলামের বাণী প্রচারের মাধ্যমে মানুষকে হেদায়েতের উদ্দেশ্যে অনুচরবর্গসহ বাংলায় আগমন করেন। তখন রাজশাহীর নগরীর নাম ছিল মাহকাল গড়। এখানে মাহকাল দেও এর বিখ্যাত মন্দিরে নরবলি দেওয়া হতো। তার স্মৃতি এখনও হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর পবিত্র দরগা শরীফে রক্ষিত আছে। মহাকাল গড়ে সে সময় বহু রকম দেও এর প্রতিমূর্তি ও মঠ-মন্দিরে পূর্ণ ছিল। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) রাজশাহী আগমনের ১০ বছর পূর্বে হযরত তুরকান শাহ্ ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে ১২৭৯ খ্রিষ্টাব্দ মহাকাল গড়ে আগমন করেন। ঐ সময়ে রাজ্য শাসন করতেন অংশুদেও চান্তভন্ডী বর্মভোজ ও অংশুদেও খেজ্জুর চান্দ খড়গ বর্মগুজ্জুভোজ। মুসলিম বিদ্বেষী এই রাজাগণের দ্বারা তুরকান শাহ্ ও তার অনুচরগণ শহীদ হন। তার মাজরও দরগা পাড়ায় আছে। তুকান শাহ্‌ ‘র আগমনের পূর্বেও কতিপয় মুসলমান ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে মহাকাল গড়ে আগমন করেন এবং শহীদ হন। এসকল হত্যাকন্ডের প্রতিশোধ ও ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ১২৮৯ খ্রিষ্টাব্দে এ দেশ আগমন করে বাঘা নামক স্থানে উপস্থিত হন এবং ইসলাম প্রচারে আত্মনিয়োগ করেন। তিনি যে স্থানে কেল্লা নির্মাণ করেছিলেন তা মখদুম নগর নামে খ্যাত। বাঘা ছিল তৎকালীন সময়ের প্রসিদ্ধ নগরী। এই নগরীর সাথে সুলতানগণের প্রশাসনিক যোগসূত্র ছিল। গৌড়ের সুলতান হোসেন শাহ্ র পুত্র নসরৎ শাহ্ ৯৩০ হিজরিতে বাঘা শরীফ পরিদর্শন করেন এবং একটি মসজিদ ও একটি পুকুর খনন করার নির্দেশ দেন। দিল্লীর বাদশাহ শাহজাহান মখদুম নগরীতে অবস্থিত মখদুম দরগাহ সংরক্ষণের জন্য ৪২টি মৌজা দান করেছিলেন। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) কর্তৃক মহাকালগড় দখল সম্পর্কে বেশ লোমহর্ষক ও রহস্যময় ঘটনা শোনা যায়। কথিত আছে মহাকাল গড়ের এক নাপিতের ৩টি পুত্র সন্তান ছিল। তন্মধ্যে দুটি নরবলি হওয়ার পর শেষ পুত্রটিও নরবলি দেবার সিদ্ধান্ত হয়। একথা জানার পর নাপিত দম্পতি দুঃখে শোকে ব্যাকুল হয়ে পড়েন এবং নিরুপায় হয়ে গোপনে মখদুম নগরে উপস্থিত হন। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বিস্তর ঘটনা শোনার পর বলেন, যাও তোমার সন্তানসহ নদীর ধারে অপেক্ষা কর আমার সাক্ষাৎ পাবে।

এই নির্দেশ পাওয়ার পরে বেশ কদিন নাপিত দম্পতি নদীর তীরে অপেক্ষা করেও হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) সাক্ষাৎ না পেয়ে বলি হবার পূর্ব রাতে ডুবে মরার ইচ্ছায় পদ্মার পানিতে নামতেই হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) পদ্মায় কুমিরে চড়ে আবির্ভূত হন এবং নাপিত দম্পত্তির সাথে কিছু কথা বলেন এবং পুত্র বলি না হওয়ার ও দেওরাজ ধ্বংস হওয়ার আশ্বাস দিয়ে কুমিরে চড়েই অন্তর্ধান হন। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর জীবনী তোয়ারিখে উল্লেখ আছে, মহাকালগড়ের মন্দির প্রাঙ্গণে প্রাচীর বেষ্টিত যাদুকুন্ড কূপ ছিল। দেও রাজাদ্বয় তা দ্বারা যাদুবিদ্যা পরিচালনা করে অসম্ভব অলৌকিক কার্য সফল করে নিজেকে ঈশ্বর হিসেবে দাবি করত। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ঐ নাপিতের কাছে সন্ধান নিয়ে যাবার কালে ঐ স্থান পরিদর্শন করে ঐসব যাদুগুণ নষ্ট করে যান। পরে ঐ যাদু স্থান উৎঘাটন করা হয়। তার তলদেশ হতে বিভিন্ন দেও পুতুল, নানা প্রকার জিনিস, অস্থী এবং ১টি জলীয় বৃক্ষ বের হয়েছিল। বর্তমানে ঐ স্থান পুকুর রুপে রয়েছে।

রাত অবসানের পর সকালে নাপিত পুত্রকে বলি দেবার জন্য দেও মন্দিরে আনা হলো। কিন্তু খাড়ার ঘাতে নাপিত পুত্র বলি হওয়া তো দূরের কথা বিন্দুমাত্র কষ্টও অনুভব করল না। বরং মহাকাল প্রতিমা পড়ে যাবার মত লেতে শুরু করল। দেওরাজের নিকট এ সংবাদ পৌছালে সে ছুটে এসে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এই নরে দোষ আছে বলে নাপিত পুত্রকে ছেড়ে দেয়। এর কয়েক দিন পর হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) দেওরাজ্যের বিরুদ্ধে মহাকালগড় জয়ের উদ্দেশ্যে মওলাং ফকির, দরবেশ, গাজি দল পাঠিয়েছিলেন। পর পর তিনবার যুদ্ধ করার পর হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) মহাকালগড়ে নরবলি প্রথার পরিবর্তে ইসলামের ঝান্ডা উড়িয়েছিলেন। প্রথম যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল বর্তমান ঘোড়ামারায়। এই যুদ্ধে দেও ধর্মাবলম্বীসহ অনেক ফকিরগণও মারা পড়েছিলেন এবং তাদের ঘোড়াও শহীদ হয়েছিত। ঘোড়া শহীদের কারনেই স্থানটির নামকরণ হয় ঘোড়ামারা। দ্বিতীয় যুদ্ধে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) সাহেব মওলাং ফকির দরবেশকে গাজী প্রেরণ করেছিলেন এবং তিনি স্বয়ং বহু মওলাং ফকির সঙ্গে করে মহাকালগড়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। যুদ্ধে বহু দৈত্য ধর্মাবলম্বী ধরাশায়ী হয়েছিল।
অনেক মঠ-মন্দির ভেঙ্গে চুরমার ও লুণ্ঠিত হয়েছিল। দৈত্যরাজ স্বপরিজনে পালিয়েছিল এবং হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বিজয়ী হয়ে মখদুম নগরে প্রত্যাগমন করেছিলেন। এরপর বনবাসী দৈত্যরাজের দৈত্য ধর্মাবলম্বীরা পুনরায় সমবেত হয়ে তীর্থস্থান উদ্ধারের জন্য মাহাকালগড়ে উপস্থিত হয়েছিল। এই সংবাদ পেয়ে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) পুনরায় মহাকালগড়ে আগমন করে সমবেত প্রতিপক্ষ দলকে পাক পায়ের মাত্র ১ পাট খড়ম ছুড়ে ধরাশায়ী করেছিলেন। অবশেষে পরিজনসহ দেওরাজ তার পায়ে পড়ে আত্মসমর্পণ করেছিল ও ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিল। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) মহাকাল দেও মন্দিরেই আস্তানা স্থাপন করেছিলেন। পানি পথে তার ছিল কুমীর বাহন, শুন্য পথে বসিবার পীড়ি আসন বাহন, শুস্ক পথে সিংহ ও বাঘ্র বাহন। তার অলৌকিক ঘটনা, বোজর্গী কেরামত দেখে অনেকে ঈমান এনে মুসলমান হয়েছিল। অনেকে সভ্য হিন্দু সমাজে নীত হয়েছিল ও অনেকে তাকে বড় যাদুগরী বলে প্রচার করেছিলন।
হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বাংলায় দেওজাতিকে ইসলামের সমহান আদর্শে দিক্ষীত করার উদ্দেশ্যে ১২৮৯ খ্রিষ্টাব্দে রাজশাহী বা সেকালের মহাকালগড়ে আগমন করে সফল নেতৃত্ব দান করে ১৩৩১ খ্রিষ্টাব্দে পরলোক গমন করেন। তার মৃত্যর পরও দরগা শরীফকে কেন্দ্র করে ইসলাম প্রচারের কাজ চলতে থাকে। তার শিষ্য ও অনুসারীগণের মধ্যে অন্যতম হিসেবে যাদের নাম পাওয়া যায় তারা হলেন- হযরত শাহ্ আব্বাস (রহঃ) (মখদুম নগরে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে তার মাজার বিলীন হয়ে গেছে), শাহ্ রকম আলী (রহঃ) (পুঠিয়া-বিড়ালদহ), হযরত দিলাল বোখারী (রহঃ) (আলাইপুর, বাঘা), হযরত শাহ্ সুলতান (রহঃ) (সুতানগঞ্জ, গোদাগাড়ী)

Aside | Posted on by | Tagged , , , , , , | Leave a comment

রাজশাহীর নামকরণ

আচ্ছা আমার মত কি আর কারো জানতে ইচ্ছা হই ,যে নিজ এলাকার নাম যেমন আমাদের রাজশাহীর কথায় বলি, রাজশাহীর নাম কেনো, কিভাবে কবে থেকে রাজশাহী হলো । রাজশাহী না হয়ে তো অন্য নাম ও হতে পারত এর পিছনের ইতিহাস টা কি জানা যাবে না ….

আসুন জানি রাজশাহীর নামকরণ যেভাবে হলো 

রাজশাহী নামটির উৎপত্তি সম্পর্কে আলোচনা করতে গেলেই কয়েক শতাব্দী পূর্বে ফিরে যেতে হয়। এ শহরের প্রাচীন নামটি ছিল মহাকাল গড়। পরে রূপান্তরিত হয়ে দাঁড়ায় রামপুর-বোয়ালিয়া থেকে রাজশাহী নামটির উদ্ভব কিভাবে হলো এর সুস্পষ্ট কোন ব্যাখ্যা নাই । ব্রিটিশ আমলের প্রাথমিক যুগের ইতিহাসেও রাজশাহী নামক কোন জনপদ বা স্থানের উল্লেখ নাই । অনেকে মনে করেন, এই জনপদ একদা বহু হিন্দু, মুসলিম, রাজা, সুলতান আর জমিদার শাসিত ছিল বলে নামকরণ হয়েছে রাজশাহী। ঐতিহাসিক ব্লকম্যানের (Bolch Mann) মতে, খ্রিষ্টীয় ১৫শ শতকে গৌড়ের মুসলিম সালতানাত এই জেলার ভাতুড়িয়ার জমিদার রাজা গণেশ কতৃর্ক আত্মসাতের সময় থেকে রাজশাহী নামের উদ্ভব হয়েছে। তিনি দাবী করেন, গৌড়ের সুলতান মাহমুদ শাহ বারবাক শাহ প্রভৃতির নামানুসারে যেমন রাজশাহীর আশে পাশে মাহমুদ শাহী, বারবাকশাহী পরগনার উদ্ভর হয়েছে। একইভাবে মুসলিম মসনদে আরোহণকারী হিন্দু রাজা শাহ বলে পরিগণিত হওয়াই এই এলাকার নামকরণ হয়েছে রাজশাহী। হিন্দু রাজ আর ফারসী শাহী এই শব্দ দুটির সমন্বয়ে উদ্ভব হয়েছে মিশ্রজাত শব্দটির। কিন্তু ব্লকম্যানের অভিমত গ্রহণে আপত্তি করে বেভারিজ (Beveridge) বলেন, নাম হিসেবে রাজশাহী অপেক্ষা প্রাচীন এবং এর অবস্থান ছিল রাজা গণেষের জমিদারী ভাতুড়িয়া পরগনা থেকে অনেক দূরে। রাজা গণেশের সময় এই নামটির উদ্ভব হলে তার উল্লেখ টোডরমল প্রণীত খাজনা আদায়ের তালিকায় অথবা আবুল ফজলের আইন-ই-আকবরী নামক গ্রন্থে অবশ্যই পাওয়া যেত। ডব্লিউ ডব্লিউ হান্টারের মতে, নাটোরের রাজা রামজীবনের জমিদারী রাজশাহী নামে পরিচিত ছিল এবং সেই নামই ইংরেজরা গ্রহণ করেন এই জেলার জন্য। এনেকে এসব ব্যাখাকে যথার্থ ইতিহাস মনে করেননা। তবে ঐতিহাসিক সত্য যে, বাংলার নবাবী আমল ১৭০০ হতে ১৭২৫ সালে নবাব মুশির্দকুলী খান সমগ্র বাংলাদেশকে রাজস্ব আদায়ের সুবিধার জন্য ১৩ (তের)টি চাকলায় বিভক্ত করেন। যার মধ্যে ‘চাকলা রাজশাহী’ নামে একটি বৃহৎ বিস্তৃতি এলাকা নির্ধারিত হয়। এর মধ্যে প্রবাহিত পদ্মা বিধৌত ‘রাজশাহী চাকলা’ কে তিনি উত্তরে বতর্মান রাজশাহী ও দক্ষিণে মুর্শিদাবাদের সঙ্গে অপর অংশ রাজশাহী নিজ চাকলা নামে অভিহিত করেন। প্রথমে সমগ্র চাকলার রাজস্ব আদায় করতেন হিন্দু রাজ-জমিদার উদয় নারায়ণ। তিনি ছিলেন মুশিদ কুলির একান্ত প্রীতিভাজন ব্যক্তি। যে জন্য নবাব তাকে রাজা উপাধী প্রদান করেন। দক্ষিণ চাকলা রাজশাহী নামে বিস্তৃত এলাকা যা সমগ্র রাজশাহী ও পাবনার অংশ নিয়ে অবস্থিত ছিল, তা ১৭১৪ সালে নবাব মুর্শিদকুলী খান নাটোরের রামজীবনের নিকট বন্দোবস্ত প্রদান করেন। এই জমিদারী পরে নাটোরের রাণী ভবানীর শাসনে আসে ও বহু অঞ্চল নিয়ে বিস্তৃতি লাভ করে। রামজীবন প্রথম নাটোর রাজ ১৭৩০ সালে মারা গেলে তার দত্তক পুত্র রামকান্ত রাজা হন। ১৭৫১ সালে রামকান্তের মৃত্যুর পরে তার স্ত্রী ভবানী দেবী রাণী ভবানী নামে উত্তরাধীকারী লাভ করেন। অনেকের মতে, প্রথম রাজা উদয় নারায়ণের উপর প্রীতি বশত এই চাকলার নাম রাজশাহী করেন নবাব মুশিদকুলী খান। কিন্তু ঐতিহাসিক অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়র মতে, রাণী ভবানীর দেয়া নাম রাজশাহী । অবশ্য মিঃ গ্রান্ট লিখেছেন যে, রাণী ভবানীর জমিদারীকেই রাজশাহী বলা হতো এবং এই চাকলার বন্দোবস্তের কালে রাজশাহী নামের উল্লেখ পাওয়া যায়। 

Posted in Uncategorized | Tagged , , | Leave a comment